Logo
নোটিশ ::
Wellcome to our website...

সুন্দরী নারী, চিকিৎসক সেজে চুরি করতে গিয়ে ধরা

রিপোর্টারের নাম / ১৩০ বার
আপডেট সময় :: বুধবার, ১১ আগস্ট, ২০২১, ১০:০৩ পূর্বাহ্ন

দিগন্ত ডেক্স : স্মার্ট, সুন্দরী, কথা বলে চৌখসভঙ্গিতে। সালোয়ার কামিজের উপর চিকিৎসকের অ্যাপ্রন পরা এবং গলায় ঝুলছে স্টেথোসকোপ। প্রথম দেখাতে চিকিৎসক মনে হতে বাধ্য। কিন্ত এই পোশাক অন্যের চোখে ধুলো দেওয়ার জন্য। তার আসল কাজ হল, লোকের বাড়িতে ঢুকে দামি জিনিসপত্র চুরি করা। চুরি করাই পেশা আফসানা আক্তার ওরফে ঈশার। এই জন্য চিকিৎসক সেজে আফসানা ঢুকে পড়ে চিকিৎসক, ইঞ্জিনিয়ার , সেনা আধিকারিক সহ গুরুত্বপূর্ণ লোকের বাড়িতে। কোথাও সোনার গয়না, কোথাও ল্যাপটপ, মোবাইল, নগদ টাকা চুরি করেছে সে।

অবশেষে ধরা পড়েছে এই ছদ্মবেশী চোর। ঢাকার লালবাগ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে করে পুলিশ। তবে, তাকে ধরা খুব সহজ ছিল না। কিন্তু ধরা পড়ার পরেই জানা গিয়েছে কিভাবে বাড়িতে ঢুকে গিয়ে চুরি করত ঈশা।

পুলিশের হাতে ধরা পড়ার আগে ঈশার শেষ চুরি তেজগাঁওয়ের পারটেক্স গলিতে। একটি অ্যাপার্টমেন্টের পাঁচতলার ফ্ল্যাটে। সেখানে থাকেন পাট গবেষণা কেন্দ্রের আধিকারিক ড. মাসরুর রহমান। ২৩ মার্চ সেখানে ঢুকে সে টাকা এবং সোনার গয়না চুরি করে। এই নিয়ে তেজগাঁও থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। এই চুরির ঘটনায় তদন্ত শুরু করেই পুলিশ গ্রেফতার করে ঈশাকে।

তেজগাঁও থানার এসআই সাইফুল বাসার বলেন, ‘ ওই অ্যাপার্টমেন্টের CCTV ফুটেজে তাকে দেখা গেলেও ঈশাকে চিহ্নিত করে ধরতে অনেক কষ্ট পেতে হয়েছে। ওই চুরির ঘটনার পর সে ঢাকা থেকে পালিয়ে গিয়েছিল । পরে জানতে পারি যে সে তার গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুরের সখিপুরে আছে। সেখানে তাকে ধরার জন্য অভিযান চালানো হয়। কিন্তু ঈশা ঢাকায় চলে আসে। এরপর সে কোথায় আছে জানার পরে রবিবার বিকেলে লালবাগ এলাকা থেকে তাকে ধরা হয়।’

পুলিশ জানিয়েছে ঈশার বিরুদ্ধে ঢাকার বিভিন্ন থানায় অন্তত সাতটি চুরির মামলা আছে। তবে তেজগাঁওয়ের বাড়িতে সে কিছু চুরি করতে পারেনি বলে দাবি করেছে। পুলিশ জানিয়েছে , রক্ষণশীল পরিবারের মেয়ে হলেও কিশোরী বয়সেই আফসানা অপরাধমূলক কাজে যুক্ত হয়ে পড়ে। সে ঢাকায় চলে আসে। মাদকের টাকা জোগাড় করতেই চুরি করত সে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর

Theme Created By ThemesDealer.Com