Logo
নোটিশ ::
Wellcome to our website...

পুলিশ পরিদর্শগন এএসপিতে পদোন্নতি না পেয়ে, হতাশায় ভুগছেন

রিপোর্টারের নাম / ২৮ বার
আপডেট সময় :: বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক : পুলিশ পরিদর্শক থেকে পদোন্নতি পেয়ে সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) হওয়ার বিষয়টি মন্ত্রণালয় আর সরকারী কর্মকমিশন সচিবালয়ে চিঠি চালাচালির মধ্যে আটকে থাকায় অনেক পরিদর্শগনের মধ্যে হতাশা ও চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। সারাদেশে সহকারী পুলিশ সুপার পদমর্যাদার পাঁচ শতাধিক পদ শূন্য থাকলেও পদোন্নতি না পেয়ে পরিদর্শক থেকে সহকারী পুলিশ সুপার হওয়ার স্বপ্ন বাস্তবে রূপ নিচ্ছে না। ফলে বিভিন্ন থানায় সততা, দক্ষ, পরিশ্রমী, মেধাবী ও বিচক্ষণতার মধ্য দিয়ে দায়িত্ব পালন করা ইন্সপেক্টর পদমর্যাদার ওসি, ইন্সপেক্টরসহ (তদন্ত) পুলিশের বিভিন্ন সংস্থায় দায়িত্বরত ইন্সপেক্টরদের দৈনন্দিন কাজেও এর ছাপ পড়ছে। বিশেষ করে এ পদোন্নতি না পাওয়ার আশ্বাসে অনেকের পরিবারেও দেখা দিয়েছে হতাশার চিহ্ন।

১৯৯০ সালে নিয়োগপ্রাপ্ত এসআই গন মাত্র ১টা প্রমোশন পেয়েছে অথচ একই সময়ে নিয়োগপ্রাপ্ত এএসপি গন ৫টা প্রমোশন পেয়েছে। অথচ তারা একই শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে একই সময়ে চাকরিতে যোগদান কেেছন। অধিকাংশ পরিদর্শক যাদের মধ্যে অনেকেরই চাকরির মেয়াদ শেষ পর্যায়ে। ইতোমধ্যে অনেকেই চাঁপা কস্টকে বুকে ধারণ করে অবসরে চলে গেছেন। আবার কেউ কেউ মৃত্যু বরণও করেছেন।

বাংলাদেশ পুলিশের তিন হাজারের বেশি পুলিশ পরিদর্শক পদের বিপরীতে প্রমোশন যোগ্য এসপি পদের সংখ্যা মাত্র ৪৪১টি। এই এএসপি পদের মোট ১৩২২টি পদের বিপরীতে ৮৮১ পদকে পূর্ণ করা হয় সরাসরি বিসিএস ক্যাডার থেকে এবং ৪৪১ বিভাগীয় পদোন্নতির মাধ্যমে। এই ৪৪১ টি পদের ৭২ দশমিক ১০ শতাংশ পদ পূরণ করা হয় নিরস্ত্র পুলিশ পরিদর্শক হতে ১৪.২৫ পার্সেন্ট পূরণ করা হয় শহর ও যানবাহন পুলিশ পরিদর্শক হতে এবং ১৩ দশমিক ৬ শতাংশ সশস্ত্র পুলিশ পরিদর্শক হতে। কিন্তু বিগত কয়েক বছরে পুলিশের সশস্ত্র পুলিশ পরিদর্শক হতে এএসপি পদে পদোন্নতি যোগ্য কোনো প্রার্থী না পাওয়ায় এই কোটায় ১৮ টি পদ শূন্য রয়েছে। যা নিরস্ত্র পুলিশ পরিদর্শকদের হাজার হাজার যোগ্যপ্রার্থীর মধ্য হতে পূরণ করা যেত। কিন্তু কোনো বাস্তব ভিত্তিক আন্তরিক পদক্ষেপের অভাবে সেটা এখানো আলোর মুখ দেখছে না। যা চাকরি ক্ষেত্রে শুধু বৈষম্য নয় মানসিক অশান্তি এবং চরম হতাশা থেকে দুর্নীতির দিকে ঠেলে দিচ্ছে। বাংলাদেশের এমন কোন সংস্থা সম্ভবত আর দ্বিতীয়টি নেই যেখানে ত্রিশ বছরে মাত্র একটি প্রমোশন পেয়ে চাকরি চালিয়ে যাচ্ছে। এই সমস্ত হতাশাগ্রস্থ হতোদ্যম পুলিশ সদস্যগণ যদিও তাদের বর্তমান যে স্কেলে বেতন পাচ্ছে সেটা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার।

এদেরকে প্রমোশন দিলে সরকারের অতিরিক্ত কোন ব্যয়ের সম্ভাবনা নেই বরং তাদের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে বর্তমান সরকারের মানবিক পুলিশ গঠনে সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারত। সরকার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার থেকে পুলিশ সুপার পদমর্যাদার পথকে সুপারনিউমারি মাধ্যমে প্রদান করছেন, যার ফলে এখন এএসপিদের তুলনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবং পুলিশ সুপারদের তুলনামূলক পদ সংখ্যা অনেক বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে যেটা অনেকটা মাথাভারী প্রশাসনের আকার ধারণ করেছে, পুলিশ বাহিনীর এই অসামঞ্জস্যতা সমাধানকল্পে অতিদ্রুত এএসপি পদসংখ্যা বৃদ্ধি এবং পুলিশ পরিদর্শক হতে এএসপি পদে পদোন্নতি সংখ্যা প্রয়োজনে সুপারনিউমারি না করলে বাহিনীর মধ্যে চরম অসন্তোষ এবং নানাবিধ হতাশার আশঙ্কা বিদ্যমান। দেশের প্রতিটা থানায় সহকারি পুলিশ সুপার এর পদ সৃষ্টি করত অথবা উপজেলা পুলিশ অফিসার পদ সৃষ্টির মাধ্যমে ও এই পদোন্নতি সমস্যার সমাধান করা যেতে পারে।

পদোন্নতি আটকে থাকাদের দাবি, নিয়ম অনুযায়ী ১০ থেকে ১২ বছর ধরে ইন্সপেক্টর পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। কর্মক্ষেত্রে সাহসিকতাপূর্ণ অবদানের জন্য তাদের অনেকেই রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) ও বাংলাদেশ পুলিশ পদকসহ (বিপিএম) বিভিন্ন ধরনের পদক পেয়েছেন। ৫০% ডিপার্টমেন্টাল প্রমোশন দেয়ার দাবীও জানান তারা।

সংশ্লিস্ট সূত্র বলছে, কোটা অনুযায়ী এক-তৃতীয়াংশ এএসপি পদ পাওয়ার কথা নিরস্ত্র পরিদর্শকদের। প্রতি বছরই বিসিএস থেকে এএসপি পদে নিয়োগও নেওয়া হচ্ছে। কিন্তু পদোন্নতি হচ্ছে না শুধু চাকরিরত ইন্সপেক্টরদের। নব্বইয়ের দশকে বিসিএস থেকে চাকরি নিয়ে অনেকে ছয় ধাপ পদোন্নতি পেয়েছেন। ৯৪ সালে কনস্টেবল থেকে পরিদর্শক হয়ে তিন দফা পদোন্নতি পেয়েছেন। মাত্র ১০ থেকে ১২ বছর আগে বিসিএস ক্যাডারে যোগদান করে তিন দফা পদোন্নতিরও নজির রয়েছে। পদোন্নতি আটকে থাকা ইন্সপেক্টররা বলছেন, নিয়ম অনুযায়ী ১০ থেকে ১২ বছর ধরে ইন্সপেক্টর পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। কর্মক্ষেত্রে সাহসিকতাপূর্ণ অবদানের জন্য তাদের অনেকেই রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) ও পুলিশে পদোন্নতি থেকে বঞ্চিত প্রায় সাড়ে ৩ হাজার ইন্সপেক্টর।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর

Theme Created By ThemesDealer.Com