Logo
নোটিশ ::
Wellcome to our website...

নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সংলগ্ন ইটভাটা নির্মাণ !

শেখ শামীম, কলমাকান্দা (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি / ৪২ বার
আপডেট সময় :: শুক্রবার, ২০ নভেম্বর, ২০২০

কলমাকান্দা (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি : সম্প্রতি নেত্রকোণার কলমাকান্দার পোগলা ইউনিয়নের ঘনবসতিপূর্ণ ধীতপুর গ্রামে একটি অসাধু মহল সকল আইন কানুন অগ্রাহ্য করে একটি ইটভাটা তৈরি করার জন্য অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে।

এর প্রভাবে  স্থানীয় পরিবেশ-পরিস্থিতি নতুন করে বিনষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। অথচ সরকারি ভাবে দেশের যত্রতত্র ইট ভাটা তৈরি না করার জন্য কঠোর নির্দেশনা রয়েছে। কারন ইটভাটার ব্যবহৃত কাঁচামাল ও কয়লা পুড়ানো ধোঁয়ায় জনজীবনে নানাবিধ কুপ্রভাব ফেলে। সেই সাথে বায়ুদূষণে দুরারোগ্য রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। অথচ এসব জেনে শুনেও একটি  ইটভাটা গড়ে তোলার জন্য জোর উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে। যা সরেজমিনে প্রত্যক্ষ ভাবে নজরে এসেছে। তাছাড়া নবনির্মিত ইটভাটার প্রায় ১৫০ মিটার পাশেই রয়েছে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। রয়েছে তিনটি মন্দির, একটি মসজিদ ও কাওমিয়া মাদ্রাসাসহ ব্যাপক ফসলি মাঠ। এতে করে কোমলমতি শিশুদের সবার চলাফেরা যেমন বাঁধার সৃষ্টি হবে। তেমনি নানাবিধ রোগ পীড়ায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । ছোট্ট গ্রামটি বিশাল জনবহুল এবং বেশিরভাগ মানুষ দরিদ্র হওয়ায় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা তাদের ব্যবসায়ের জন্য এ অঞ্চলটি বেছে নিয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় প্রাক্তন শিক্ষার্থীরাসহ অনেকই আক্ষেপ করে বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় ১৫০ মিটার দূরে ধীতপুর গ্রামে প্রায় ৫০ কাঠার দুই  ফসলি জমিতে  ইট ভাটা তৈরি করছেন। আর যেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিয়েছেন ফসলি জমি নষ্ট করে কিছু করা যাবে না। গ্রামে যদি ইটের মাঠ তৈরি করা হয় তবে সর্বাত্মক প্রকৃতি-বান্ধব পরিবেশ ধ্বংস হয়ে যাবে এবং এটি আমাদের স্বাস্থ্যঝুঁকির সৃষ্টি করবে। বিভিন্ন ধরণের ফসলের উৎপাদন বিপজ্জনক পরিস্থিতির মুখোমুখি হবে। পাশাপাশি সংলগ্ন  দুটি বিদ্যালয় ও একটি মাদ্রাসা শিক্ষার পরিবেশ, ধর্মীয় উপাসনালয়ের পরিবেশের উপর এর উপর কঠোর প্রভাব পড়বে।

ধীতপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. মাইনউদ্দিন বলেন, আমরা মালিকদের ইটভাটা নির্মাণ কাজ বন্ধ করতে বলেছি কিন্তু তারা তাদের কথা কর্ণপাত না করে ইট ভাটার নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন ।

পোগলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ইটভাটা মালিকরা বেশ কয়েকবার ট্রেড লাইসেন্সের জন্য তার সাথে দেখা করেন এবং বৈধ কাগজপত্র দেখাতে বললে তারা পরে আসেনি।

এবিষয়ে ধীতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. রোকন উদ্দিন বিশ্বাস বলেন, এখানে ইটের ভাটা স্থাপন করা হলে স্থানীয় পরিবেশের উপর এক বিপর্যয়কর প্রভাব ফেলবে। সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করছেন তিনি।

এ ব্যাপারে জমির মালিক আবু বক্কর এর নিকট জানতে চাইলে তিনি জানান, আমরা চার ভাই দুই ফসলির ৫০ কাঠা জমি  বাৎসরিক নগদ ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে ইট ভাটা করার জন্য একই ইউনিয়নের পাশ্ববর্তী বেখুরিয়াকান্দা শুনই গ্রামের আবদুল আউয়াল তালুকদারের কাছে ভাড়া দিয়েছি। ইট ভাটার মালিক আমার বড় ভাইয়ের আত্মীয় বলে ভাড়া দিয়েছি।

এবিষয়ে ইট ভাটার মালিকের পক্ষে দায়িত্বে স্থানীয় বাসিন্দা ম্যানেজার বাবু চঞ্চল জানান, তারা প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদফতরের ইটভাটা তৈরির অনুমতি নিয়েছি। ইতিমধ্যেই ময়মনসিংহ বিভাগের পরিবেশ অধিদফতরের লোকজন সরেজমিনে পরিদর্শন করে অনুমতি দিয়েছেন। চলতি বছরের ডিসেম্বরে এই ভাটাটি কার্যকর হবে।

এবিষয়ে যোগাযোগ করা হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা  মো. সোহেল রানা জানান, এটি অবৈধভাবে ইটভাটা তৈরি করা হচ্ছে । অবৈধভাবে কোন ইট ভাটাকে চলতে দেওয়া হবে না। আমি পরিবেশ অধিদপ্তরকে বিষয়টি জানিয়েছি।  পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকতাগন আসলে পরে তাদের নিয়ে সরেজমিনে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এব্যাপারে ময়মনসিংহ বিভাগের পরিবেশ অধিদফতরের  পরিচালক ফরিদ আহমেদ এর মুঠোফোনে জানতে চাইলে ইট ভাটা নির্মাণের অনুমতি কথা অস্বীকার করে তিনি বলেন , ইট ফিল্ডের মালিক তাদের কাছে কোনও আবেদন জমা দেয়নি। পরিপত্র অনুযায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বা খামার জমির এক কিলোমিটারের মধ্যে ইটভাটা নির্মাণের সুযোগ নেই। পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তারা শীঘ্রই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করবেন বলে তিনি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর

Theme Created By ThemesDealer.Com