Logo
নোটিশ ::
Wellcome to our website...

নবাবগঞ্জের নিমাঞ্চল প্লাবিত, ভয়াবহ অবস্থা

রিপোর্টারের নাম / ৪১ বার
আপডেট সময় :: শনিবার, ১৮ জুলাই, ২০২০

দিগন্ত ডেক্স : পদ্মায় অব্যাহত পানি বৃদ্ধির ফলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। এতে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। দোহার-নবাবগঞ্জ-মানিকগঞ্জ রক্ষা বাঁধের পশ্চিম অংশের বিস্তীর্ণ ১৫টি এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলার পদ্মার তীরবর্তী জয়কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের তিতপালিদয়া, পানিকাউর, কঠুরি, আশয়পুর, রায়পুর, ঘোষাইল, কেদারপুর, আর ঘোষাইল, রাজাপুর, বালেঙ্গা, কান্তারটেক, খাটবাজার, নয়াডাঙ্গী, চারাখালী ও পশ্চিম সোনাবাজু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এতে পানিবন্দী হয়ে পড়েছে হাজারো পরিবার।

বন্যাদুর্গত এলাকার মানুষের যাতায়াতের একমাত্র ভরসা এখন নৌকা। কেউ কেউ বাঁশের সাকো তৈরি করেও যাতায়াত করছে। নৌকা না থাকায় অনেকেই কলাগাছের ভেলা ব্যবহার করেও হাঁট-বাজার করছে।

বন্যাদুর্গত এলাকায় দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানির অভাব। সরকারি বেসরকারি কোনো ত্রাণও পোঁছায়নি। ফলে মানবেতর জীবনযাপন করছে বন্যাকবলিত এসব এলাকার বাসিন্দারা। পদ্মার পানিতে তলিয়ে গেছে হাজার হাজার একর ফসলি জমি। তলিয়ে গেছে স্কুল, হাঁট-বাজার, রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি সহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা। পানি বৃদ্ধির ফলে গৃহপালিত গবাদিপশু নিয়েও বিপাকে পড়েছে এসব অঞ্চলের বাসিন্দারা। গো-খাদ্যের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এতে করে একদিকে পরিবার পরিজন নিয়ে অতিকষ্টে দিনাদিপাত করছে বন্যাকবলিত এলাকার মানুষজন। করোন ভাইরাসের কারনে সবার উপার্জন ই বন্ধ। এরই মধ্যে বন্যা দেখা দেওয়ায় অনেকেরই দু’বেলা দুমুঠো খাবারও জুটছে না।

ঘোষাইল গ্রামের শামীম হোসেন বলেন, ‘‘আমাগো এলাকা প্রতি বছরই প্লাবিত হয়। সরকারিভাবে স্বল্প কিছু ত্রাণ সহায়তা আসে। যা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। সমাজ কল্যাণ নামে একটি সংগঠন বন্যাকবলিত ৪০০ পরিবারের মাঝে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছে’’।

এব্যাপারে জয়কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমান মাসুদ বলেন, গত তিন দিনে পদ্মার পানি অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় আমার ইউনিয়নের ১৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এখানে ভয়াবহ অবস্থা। রাস্তা ঘাট তলিয়ে গেছে। মানুষজন অনেক কষ্টে জীবনযাপন করছে। সরকারি ত্রাণ সহায়তা এখনো পৌঁছায়নি। সবসময় প্লাবিত এলাকা পরিদর্শন করছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর

Theme Created By ThemesDealer.Com